তরুণীকে দল বেঁধে ধর্ষণের দায়ে গ্রেপ্তা‌র ২ বৃদ্ধ

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে স্বামী পরিত্যক্তা এক তরুণীকে দল বেঁধে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। দুই নৈশ্য প্রহরীসহ তিনজন মিলে তরুণীটির ওপর শনিবার মধ্যরাতে পাশবিক নির্যাতন চালান। খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালিয়ে দুই অভিযুক্তকে আজ দুপুরে গ্রেপ্তার করেছে।



উপজেলার মাইজবাগ ইউনিয়নের একটি গ্রামের বাসিন্দা ওই তরুণী (১৮)। বিয়ে হলেও স্বামী পরিত্যক্তা হয়ে বাবার সংসারে বসবাস করছিলেন তিনি। মানসিক সমস্যা থাকায় ওই তরুণী প্রায়ই রাতের বেলা বাইরে চলে যেতেন ঘোরাঘুরির জন্য।


রোববার রাতেও ওই তরুণী বাড়ি থেকে বের হয়ে রাত সাড়ে ১২টার দিকে বাড়ির কাছেই বটতলা বাজারের চলে যান। মেয়েটিকে একা পেয়ে নজর পড়ে বাজারের নৈশ্য প্রহরী আবদুল মান্নান (৫৬), নূরুল ইসলাম (৪৫) ও আবদুল বারেক (৫৮) নামের আরেক ব্যক্তির। তারা সবাই ভাসা গোকূল নগর গ্রামের বাসিন্দা। মান্নান ও নূরুল ইসলাম নৈশ্য প্রহরী হিসেবে কাজ করলেও বারেক বাজারে ঘুরতে গিয়েছিলেন।

গভীর রাতে মেয়েটিকে একা পেয়ে বাজারের পাশের ইটভাটায় নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন আবদুল মান্নান, নূরুল ইসলাম ও আবদুল বারেক।


এসময় মেয়েকে খুঁজতে থাকা বাবা টর্চের আলো ফেললে অভিযুক্তরা পালিয়ে যান। আজ সকাল ১১টার দিকে থানায় মেয়েকে নিয়ে হাজির হয় বাবা।

নির্যাতনের বর্ণনা শুনে ঈশ্বরগঞ্জ থানার পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযানে যায়। আটক করা হয় বাজারের আবদুল মান্নান ও আবদুল বারেককে। আরেক অভিযুক্ত নূরুল ইসলাম পলাতক থাকায় তাকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।