প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে মেয়ের গলা কেটে দিলো বাবা!

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে নিজের চার বছরের মেয়ের গলায় ছুঁড়ি চালিয়েছে এক বাবা। বুধবার সকাল ১০টার দিকে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের রূপাহারা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।




এলাকাবাসী শিশুটিকে উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে দুপুর ১২টার দিকে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। তার অবস্থা আশংঙ্কাজনক বলে ডিমলা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।


এ ঘটনায় অভিযুক্ত বাবা মসিদুল ইসলামকে (৪০) আটক করেছে পুলিশ। আটক মসিদুল ওই গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে।

এলাকাবাসী জানায়, একই গ্রামের শনে আলীর ছেলে হাফিজুল ইসলামের (৪৫) সঙ্গে ৭০ শতক জমি নিয়ে মসিদুল ইসলামের বিরোধ চলে আসছিল। বিরোধপূর্ণ জমিতে মসিদুল ঘর তুললে বুধবার সকালে হাফিজুল ইসলাম তার দলবল নিয়ে মসিদুলের ঘর ভাঙচুর করে। এ সময় মসিদুল ইসলাম প্রতিপক্ষকে রুখতে ধারালো ছুরি দিয়ে তার চার বছরের মেয়ে সুমী আক্তারের গলা কেটে দেয়। এ অবস্থায় প্রতিপক্ষরা পরিস্থিতি বেগতিক দেখে পুলিশকে খবর দিয়ে গ্রামবাসীর সহায়তায় শিশুটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়।


ডিমলা থানার ওসি মফিজুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে গ্রামবাসীর কাছে প্রমাণ সাপেক্ষে শিশুটির বাবাকে আটক করা হয়। শিশুটির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে রংপুর মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।