নগ্ন ভিডিও প্রকাশের ভয়ে চিঠি লিখে কিশোরীর আত্মহত্যা

সাটুরিয়ার দরগ্রাম ইউনিয়নে তাহমিনা নামে এক স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পরিবারের সদস্যদের ধারণা, নগ্ন ছবি ও ভিডিও মোবাইলে ধারণ করে ব্ল্যাকমেইল করার কারণে সে আত্মহত্যা করেছে।



শুক্রবার রাতে ইউনিয়নের মধ্য রৌহা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তাহমিনা গোপালপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী ছিল। সে রৌহা গ্রামের মৃত খোরশেদ মিয়ার মেয়ে।

স্থানীয় ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, মাসুদ মিয়ার ছেলে রেদুয়ানের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে তাহমিনার। রেদুয়ান দরগ্রাম ভিকু মেমোরিয়াল ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। প্রেমের এক পর্যায়ে তাহমিনার নগ্ন ছবি ও ভিডিও মোবাইলে ধারণ করে ব্ল্যাকমেইল শুরু করে রেদুয়ান। এ কারণে তাহমিনা গলায় ফাঁস দিয়ে নিজ ঘরে আত্মহত্যা করে।

ভিডিওতে দেখুন কি বলছে প্রেমিক রেদুয়ান

মৃত্যুর আগে ওই ছাত্রী একটি চিঠি লিখেছে। তাতে লেখা রয়েছে, ‘আমাকে ক্ষমা কর মা। আমি আর সইতে পারছি না। আমি জানি অনেকের সাথে আমি খারাপ ব্যবহার করেছি। পারলে আমাকে ক্ষমা করে দিও।’

বন্ধু-বান্ধবীদের উদ্দেশ্যে লিখেছেন, ‘তোরা ভালো থাকিস। আমি ওপারে চলে গেলাম।’

তাহমিনার মামা আব্দুস সোবহান মিয়া জানান, তাহমিনার মোবাইল থেকে রেদুয়ানের সঙ্গে তার একটি নগ্ন ভিডিও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

দেখে নিন উদ্ধার হওয়া সেই ভিডিওটি

তাহমিনার বান্ধবীরা জানায়, তাহমিনা রেদুয়ানকে বিয়ের জন্য চাপ দিলে সে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায় এবং তাহমিনার নগ্ন ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয়।