ছাত্রীর মাকে 'ধর্ষণের' ভিডিও ইন্টারনেটে, স্কুলশিক্ষক গ্রেফতার

খুলনার পাইকগাছায় ছাত্রীর মাকে 'ধর্ষণ' করে সেইসব ছবি ও ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে তরিকুল ইসলাম (৩৫) নামের এক  সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত শনিবার সন্ধ্যায় পর্নোগ্রাফি ও নারী নির্যাতন দমন আইনে দায়ের করা মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়।



তরিকুল গজালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। তিনি পাইকগাছা পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সরল গ্রামের মৃত আবু দাউদ আহমেদের ছেলে।

পাইকগাছা থানার ওসি মো. এজাজ শফী জানান, ২০১৪ সাল থেকে ২০১৯ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত উপজেলার রেজ্জাকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ছিলেন তরিকুল ইসলাম।

ওই স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে প্রাইভেট পড়ানোর সুযোগে ছাত্রীর মায়ের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলেন তিনি। ওইসব ঘটনার ভিডিও ও ছবি নিজ মোবাইলে ধারণ করেন। পরে গজালিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বদলি হওয়ার পরও ওই নারীকে অবৈধ প্রস্তাব দিলে তিনি আর রাজি হননি।


এরপর ওই শিক্ষক ওইসব ছবি ও ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেন। এক পর্যায়ে
ছবি ও ভিডিও ডিলেট করার শর্তে গত ১০ ফ্রেব্রুয়ারি রাতে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করতে বাধ্য করেন ওই শিক্ষক। কিন্তু এরপরও ওই ছবি ও ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেন তিনি। এ ঘটনায় ওই নারী বাদী হয়ে শনিবার তরিকুলের বিরদ্ধে পর্নোগ্রাফি ও নারী-শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। পরে তাকে গ্রেফতার করা হয়।


ওইসব ছবি ও ভিডিও জব্দ করে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠানো হয়েছে।