করোনাযুদ্ধে শহীদ প্রথম পুলিশ সদস্য জসিম

রাজধানীতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে একজন পুলিশ সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (২৮ এপ্রিল) দিবাগত রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মারা যান।



বুধবার (২৯ এপ্রিল) সকালে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) থেকে পুলিশকে জানানো হয়, মারা যাওয়া ওই কনস্টেবল করোনা পজিটিভ ছিলেন। দেশে এই প্রথম কোনো পুলিশ সদস্যের করোনায় মৃত্যু হলো।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বাংলাদেশ পুলিশ এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।


করোনা ভাইরাসে মারা যাওয়া ওই কনস্টেবলের নাম জসিম উদ্দিন (৪০)। তিনি কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার বাসিন্দা ছিলেন। তার দুই মেয়ে ও এক ছেলে রয়েছে। জসিম উদ্দিন ওয়ারি থানায় পুলিশ বিভাগে কর্মরত ছিলেন। ওয়ারি ফাঁড়িতে দায়িত্ব পালনের সময় তিনি করোনায় সংক্রমিত হন।

ওয়ারি বিভাগের উপ-কমিশনার শাহ ইফতেখার আহমেদ সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, কয়েকদিন আগে জসিম উদ্দিনের শরীরে করোনার লক্ষণ পাওয়া যায়। এরপর করোনা সন্দেহে তাকে ফকিরাপুলের একটি হোটেলে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়। ২৫ এপ্রিল তার নমুনা আইইডিসিআরে পাঠানো হয়।

নমুনার ফলাফল আসার পর তাকে পুলিশ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে নেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মঙ্গলবার তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। এরপর তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। রাত সাড়ে ১০টার দিকে চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে জানা যায়, তার নমুনায় করোনা পাওয়া গেছে।


এদিকে, করোনা-যুদ্ধে কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে হারানোর শোককে শক্তিতে পরিণত করে এগিয়ে যাবার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে বাংলাদেশ পুলিশ।

সংবাদমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আমরা অত্যন্ত দুঃখের সাথে জানাচ্ছি করোনা মোকাবিলায় মাঠ পর্যায়ের প্রধান সম্মুখ যোদ্ধা বাংলাদেশ পুলিশের এক গর্বিত সদস্য কনস্টেবল মো. জসিম উদ্দিন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন।

চলমান করোনা-যুদ্ধে দেশের সম্মানিত জনগণকে সুরক্ষিত রাখতে গিয়ে মো. জসিম উদ্দিনের মৃত্যুতে বাংলাদেশ পুলিশ গভীরভাবে শোকাহত। একই সাথে দেশমাতৃকার সেবায় তার এমন আত্মত্যাগে বাংলাদেশ পুলিশ গর্বিত। তাকে হারানোর শোককে শক্তিতে পরিণত করে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ পুলিশ।


বাংলাদেশ পুলিশের ব্যবস্থাপনায় মো. জসিম উদ্দিনের মরদেহ গ্রামের বাড়ি কুমিল্লায় পাঠানো হবে। সেখানে ধর্মীয়-রীতি মেনে তাকে দাফন করা হবে। তিনি স্ত্রীসহ দুই মেয়ে এক ছেলেসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। করোনা যুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারী কনস্টেবল মো. জসিম উদ্দিনের পরিবারের পাশে থাকবে বাংলাদেশ পুলিশ।