গাণিতিক পরিসংখ্যান প্রমান করলো কতদিন থাকবে করোনা মহামারী

করোনা ভাইরাস নিয়ে আশার বাণী শুনিয়েছেন স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটির বায়োলজির প্রফেসর এবং ২০১৩ সালে রসায়নে নোবেল পুরস্কার পাওয়া মাইকেল লেভিট।



তিনি বলেন, মানবসভ্যতাকে আতঙ্কে ফেলে দেওয়া করোনাভাইরাসের প্রভাব ধীরে ধীরে কমে আসছে। দ্রুত এই মহামারী সমাপ্তির সন্নিকটে পৌঁছাচ্ছে। তিনি বিষয়টি নিয়ে হিসাবনিকাশ করে বলেছেন, যদিও কয়েক মাস বা বছরে ভাইরাসটি শেষ হয়ে যাবে এমন নয়, তবে এটি লাখ লাখ মানুষের মৃত্যুর কারণ হবে না।


লেভিট বলেন, চীনের হুবেই প্রদেশে যখন দিনে ৩০ ভাগ মানুষ আক্রান্ত হওয়া শুরু করল, তখন অবশ্যই সেটি আতঙ্কজনক পরিসংখ্যান ছিল। যদি আক্রান্তের হার এভাবেই বাড়ত, তবে ৯০ দিনে পুরো পৃথিবীর মানুষ এতে আক্রান্ত হতো। যদিও আমি ইনফ্লুয়েঞ্জা বিশেষজ্ঞ নই, তবু আক্রান্তের সংখ্যা ও তার বৃদ্ধি বিশ্লেষণ করে পরবর্তী সম্ভাবনার কথা বলতে পারি।

ফেব্রুয়ারির ১ তারিখে লেভিট খেয়াল করেন, চীনে নতুন রোগীর সংখ্যা ১৮০০, ষষ্ঠ দিনে ৪৭০০। আবার ৭ ফেব্রুয়ারি এ সংখ্যা ক্রমাগত কমে আসে এবং হ্রাস অব্যাহত থাকে। ঠিক এক সপ্তাহ পর, মৃতের সংখ্যাও কমতে থাকে। আক্রান্তের সংখ্যা কমে যাওয়ার এ পরিসংখ্যান থেকে ধারণা করা যায়, মহামারী খুব দ্রুত শেষ হতে যাচ্ছে। চীনে শুরুর দিকে প্রত্যেক কোভিড-১৯ রোগী দিনে দুই দশমিক দুজন ব্যক্তিকে আক্রান্ত করেছে। এই উচ্চমাত্রার সংক্রমণের কারণে বিপর্যয় হতে পারত আরও বেশি। কিন্তু আক্রান্তের হার কমতে কমতে বর্তমান সংখ্যা প্রায় শূন্যের কাছাকাছি।


 ব্যাখ্যাটি সহজে বোঝানোর জন্য লেভিট একটি গাণিতিক পরিসংখ্যান দেখিয়েছেন।

 তিনি বলেন, একজন ব্যক্তি ব্যাংকে অর্থ জমা রেখেছেন। যদি সে অর্থের বিপরীতে প্রথম দিন তিনি ৩০ শতাংশ সুদ পান এবং দ্বিতীয় দিন পান ২৯ শতাংশ, তাহলেই বোঝা যায়, তিনি শেষ পর্যন্ত খুব বেশি সুদ পাবেন না। সুদ কমলেও টাকা উপার্জন অব্যাহত থাকবে। যে আসল জমা ছিল তা কিন্তু কমবে না। এতে সুদের জোগান যুক্ত হবে খুব ধীরে। রোগের ক্ষেত্রে যদি পরিসংখ্যান দাঁড় করানো যায়, তখনো এ কথা বলা যায়। আক্রান্তের সংখ্যা কমে আসা মানে এর বিস্তৃতি এক দিন নাই হয়ে যাবে।


কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত হওয়া নিয়ে লেভিট বলেন, ক্রমবর্ধমান মডেল অনুযায়ী আপনি ভাবতে পারেন, রোজ নতুন মানুষের সঙ্গে দেখা হচ্ছে বলে প্রতিদিনই নতুন কেউ আক্রান্ত হবে। কিন্তু নিজের সামাজিক পরিসর চিন্তা করলে দেখবেন, ঘুরেফিরে প্রতিদিন একই মানুষের সঙ্গে দেখা হচ্ছে আপনার। নতুন কারও সঙ্গে দেখা হতে পারে গণপরিবহনে। যদি বাসেও আক্রান্তের সংখ্যা হিসাব করি, তাহলে হয় সবাই আক্রান্ত হবে অথবা সবাই নিজস্ব রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতায় সেরে উঠবে। তার মতে, সামাজিক দূরত্বও এই রোগ ছড়াতে বাধা দিচ্ছে। কারণ আপনি সব সময় সবাইকে জড়িয়ে ধরেন না। আপনার আশপাশে যার ঠাণ্ডা লেগেছে, তাকে আপনি এড়িয়েই চলবেন। যত অসুস্থতা বাড়বে, তত সংক্রমণ ঠেকাতে আপনি সচেতন হবেন। এভাবে প্রতি তিন দিনে একজন ব্যক্তি দেড়জনকে আক্রান্ত করতে পারবে, যা ক্রমে আরও কমে আসবে।

লেভিটের ধারণা যদি সত্যি হয়, তাহলে হয়তো কয়েক মাস বা বছরখানেকের মধ্যেই করোনাভাইরাস নিশ্চিহ্ন হতে যাচ্ছে।