Sponsored

গার্লফ্রেন্ডের দিকে তাকানো নিয়ে সংঘর্ষে ছাত্রলীগ

গার্লফ্রেন্ডের দিকে তাকানোকে কেন্দ্র করে সাতক্ষীরা কলেজ ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে কয়েকজন আহত হয়েছেন। আহতরা সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।



গতকাল শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ ক্যাম্পাসে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন, সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র এবং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক উজ্জ্বল হোসেন, উত্তর কাটিয়া এলাকার ছাত্রলীগ নেতা মির্জা ইব্রাহিম ও আরিয়ান আলিফ।


ইব্রাহিম জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী আশিকুর রহমানের অনুসারী এবং উজ্জ্বল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুনসুর আহমেদের অনুসারী বলে জানা গেছে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মির্জা ইব্রাহিম জানান, আজ সকালে তিনি তার এক বান্ধবীকে নিয়ে কলেজ মাঠে দাঁড়িয়েছিলেন। পাশে ফরহাদ নামের এক ছাত্রলীগ কর্মী সেখানে গাঁজা সেবন করছিলেন। এ নিয়ে ইব্রাহিম তাকে নিষেধ করলে তখন ফরহাদ বলেন, ‘তুই এখানে মেয়ে নিয়ে গল্প করছিস কেন?’ এ নিয়ে দুজনের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়।

ইব্রাহিম আরও জানান, পরে ফরহাদ ফোন করে তার কয়েকজন বন্ধুকে ডেকে আনেন। তাদের মধ্যে ছাত্রলীগ নেতা উজ্জ্বল তাকে ছুরিকাঘাত করেন। এ খবর পেয়ে ইব্রাহিমের পক্ষের কয়েকজন এসে উজ্জ্বলকেও মারধর করেন।

এদিকে আহত ছাত্রলীগ নেতা উজ্জ্বল হোসেন বলেন, ‘সকালে ইব্রাহিম গার্লফ্রেন্ডের সঙ্গে দাঁড়িয়ে ছিল। এ সময় ছাত্রলীগ কর্মী ফরহাদ তাদের পাশ দিয়ে যাচ্ছিল। সঙ্গে সঙ্গে ইব্রাহিম বলে, ওর (গার্লফ্রেন্ডের) দিকে এভাবে তাকাইলি কেন? এ বলেই সজীবকে মারধর শুরু করে ইব্রাহিম। পরে সজীব আমার মোবাইলে কল দিলে ঘটনাস্থলে যাই। গিয়ে তাদের থামানোর চেষ্টা করি। এ সময় ইব্রাহিম ও তার গ্রুপের কর্মীরা আমাকে ছুরি মারে।’

এ বিষয়ে সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘সামান্য ঘটনা নিয়ে ছাত্রলীগের দুইপক্ষের সামান্য গণ্ডগোল হয়েছে বলে শুনেছি। তবে এ বিষয়ে কোনো পক্ষ থানায় অভিযোগ দেয়নি।’