Sponsored

৮ ব্র্যান্ডের ক্রিমে ক্ষতিকর মাত্রায় পারদ পেয়েছে বিএসটিআই


বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই)  হচ্ছে পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠান। তারা জানিয়েছে, তাদের পরীক্ষাগারে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের রং ফরসাকারী ১৩টি Skin Cream পরীক্ষা করার পর ৬টিতে বিপজ্জনক মাত্রায় পারদ (মার্কারি) পাওয়া গেছে। এ ছাড়া দুটি ব্র্যান্ডের ক্রিমে মাত্রাতিরিক্ত পারদের পাশাপাশি মাত্রাতিরিক্ত হাইড্রোকুইনোন পাওয়া যায়। সেখানের আটটি ব্র্যান্ডই পাকিস্তানি। 

মাত্রার চেয়ে বেশি পারদ ও হাইড্রোকুইনোন মানবস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর বলে জানিয়েছে বিএসটিআই। তারা বলছে, এসব Skin Cream দীর্ঘদিন ব্যবহার করলে বিভিন্ন ধরনের চর্মরোগ হতে পারে। বিএসটিআই আজ সোমবার এক বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, তাদের নিয়মিত পরিদর্শন দলের মাধ্যমে বাজার থেকে এসব ব্র্যান্ডের পণ্য কিনে পরীক্ষা করা হয়। স্কিন ক্রিমের সংশ্লিষ্ট বাংলাদেশ মান (বিডিএস ১৩৮২:২০১৯) অনুযায়ী মার্কারির গ্রহণযোগ্য সর্বোচ্চ মাত্রা ১ পিপিএম। আর হাইড্রোকুইনোনের গ্রহণযোগ্য সর্বোচ্চ মাত্রা ৫ পিপিএম।

পরীক্ষায় পাকিস্তানের গোরি কসমেটিকস (প্রাইভেট) লিমিটেডের গোরি ব্র্যান্ডের ক্রিমে ৭৫৬ পিপিএম, এস জে এন্টারপ্রাইজের চাঁদনি ব্র্যান্ডের ক্রিমে ৬৩০ পিপিএম, কিউ সি ইন্টারন্যাশনালের নিউ ফেস ব্র্যান্ডের ক্রিমে ৫৯০ পিপিএম, ক্রিয়েটিভ কসমেটিকসের ডিউ ব্র্যান্ডের ক্রিমে ২৮৬ পিপিএম, গোল্ডেন পার্ল কসমেটিকসের গোল্ডেন পার্ল ব্র্যান্ডের ক্রিমে ৬৫৪ পিপিএম ও পুনিয়া ব্রাদার্সের ফাইজা ব্র্যান্ডের স্কিন ক্রিমে ৫৯০ পিপিএম পারদ পাওয়া যায়।

এ ছাড়া পাকিস্তানের নুর গোল্ড কসমেটিকসের নুর ব্র্যান্ডের স্কিন ক্রিমে পারদের মাত্রা ১৯৪ পিপিএম ও হাইড্রোকুইনোনের মাত্রা ১৯৮১ পিপিএম এবং পাকিস্তানের হোয়াইট পার্ল কসমেটিকসের হোয়াইট পার্ল প্লাস ব্র্যান্ডের স্কিন ক্রিমে পারদের মাত্রা ৯৪৯ পিপিএম ও হাইড্রোকুইনোনের মাত্রা ৪৩৫ পিপিএম পাওয়া গেছে।
জনস্বাস্থ্য রক্ষার স্বার্থে অনতিবিলম্বে মাত্রাতিরিক্ত পারদযুক্ত এসব রং ফরসাকারী ক্রিম বিক্রি ও বিতরণ বন্ধ করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অন্যথায় আমদানিকারক/সরবরাহকারী/বিক্রেতাদের (অনলাইনসহ) বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে বিএসটিআই। একই সঙ্গে বিএসটিআইর অনুমোদনহীন এসব স্কিন ক্রিম ব্যবহার থেকে বিরত থাকার জন্য ক্রেতাসাধারণকে অনুরোধ করা হয়েছে বিএসটিআইয়ের পক্ষ থেকে।