Categories
blog

Top Writings-Middle School Essay Design

With our company, you can get university essay for sale, get report composing, or get any other aid with your assignments.

With us, you get a likelihood to boost your grades and help you save time, all at an very affordable value!rnWho will do my paper and what assures do I get? This is the most essential query a college student might have right before purchasing educational papers online. If you choose Edusson, you have no purpose to worry due to the fact our staff is really specialist and certified!rnWe only hire really experienced writers with solid expertise in certain academic areas and large specialist expertise. Our writers are graduates of the most effective universities with quite a few several years of encounter in crafting tutorial papers. rnWhat are the critical advantages of our writers? There are several positive when writing a research paper aspects we could checklist but right here are some of the most sizeable ones that make us the most effective report producing support:rnAll writers possess Ph. D. or MA levels They just take a artistic approach to each individual task Just about every crew member is dependable and dependable Every writer is a tested professional in his or her field with a lot of a long time of specialist experience Every member of our workforce is equipped to get the job done under limited deadlines and supply great papers on time Each and every writers are mindful of the modern day procedures and specifications for tutorial writing and generally generate papers compliant with the most stringent standards. rnSounds amazing, will not it? We didn’t even get to the best part but! In addition to the previously mentioned, all our writers are native English speakers, which allows them to generate papers with purely natural language absolutely free of grammar problems! What else could you desire for? Our reserve report producing services is often completely ready to assistance with your papers at any stage of problems and on any subject, so do not wait lengthier and get by yourself an A-deserving paper now!rnEdusson is a company with abundant practical experience and a flawless status but how do we maintain our foremost situation in the industry of tutorial help? The remedy lies in the impeccable good quality we provide.

The papers we deliver our buyers are always a hundred% exceptional and penned to the highest high-quality expectations. Even so, this is just a smaller aspect of the gains we supply.

Writing Up A Dissertation

In addition, our expert post crafting company gives you the next ensures and advantages:rnThe ideal among the cost-effective write-up writing expert services! Whilst Edusson stands for flawless high-quality, we are a cheap report creating provider that everyone can find the money for, and this is 1 of our most significant positive aspects because nowhere else can a college student get these types of large quality at such a very low value! We work all around the clock! The buyer support chat is convenient and offered all working day to enable our prospects feel comfy as they perform with our educational posting creating company. Thus, if you ever encounter any concerns or have some concerns still left unanswered – come to feel free to attain out to our help managers any time of day or night time! Your facts stays conf >Not devoid of explanation, we are the most effective assignment crafting services, even when it arrives to the buying process, we give you the ideal conditions! It is quick and intuitive to area an get at Edusson. The whole process can be divided into four fast ways, which acquire considerably less than 5 minutes complete.

Essay Writing On Pollution In Hindi

Here is a tiny guideline to support you with the get course of action:rnGo to our internet site, prov >Are you nevertheless thinking which article producing providers to opt for? Now it really is the ideal time for you to prevent guessing and last but not least act! Edusson has all the things you have been seeking for – no plagiarism, high high-quality, minimal selling price, and qualified writers, so what are you waiting for? Do not wait for the final instant to get your paper, improved do it now and be confident the experienced staff of Edusson will do every thing on time and at a major stage! Get the greatest grades and forget about of all your academic problems when and for all. rnrnLet our team of professional writers acquire treatment of your assignments!rnAs a very first stage, we are going to inquire you to supply as numerous facts about your assignment as feasible.

Categories
blog

Essay Writing In Italian Writing Service

While he was this great leader or legend, some individuals didn’t concur, he was a psychotic maniac, who experienced […]rnAlexander the Wonderful was a single of the most impressive armed service leaders in human background. He never ever shed and gained a great number of battles to unite considerably of the japanese entire world and develop the most important empire identified to person.

A lot of what he did nevertheless influences us currently. But in order to absolutely recognize what he did and […]rnPaul Cartledge is a British historic historian and an educational and he is also recognised for all his will work of historic Greece and Sparta, primarily a novel named THE SPARTANS. Cartledge was educated at St Paul’s Faculty and New Faculty, Oxford, the place, with his contemporaries Robin Lane Fox and Terence Irwin, he was a college student […]rnAlexander III of Macedon, commonly regarded as alexander the great, was sample college essay papers https://akademized.com/ to buy an essay paper born in July 356 B.

C. in Pella, Macedonia.

He was the son of King Philip II of Macedon and Queen Olympias of Epirus. It is considered that he experienced less of a close partnership with his father, as opposed to his mother’s shut romantic relationship with […]rnTo persons, Alexander the Terrific was granted as 1 of the most significant armed forces figure of our ancient history. He was described to strive for greatness at a incredibly youthful age by his father Philip II. Alexander was born in July of 356 BC in Pella Greece. His father’s identify was Philip II of Macedon, and […]rnGreat leaders typically leave a long lasting perception.

Some even converse profoundly. For case in point, Alexander of Macedonia said,I experienced alternatively excel many others in the know-how of what is outstanding, than in the extent of my electric power and dominion “Alexander the Wonderful Rates”.

He was a well-known king who did not worry any person or anything he was […]rnAle Alexander the 3rd of Macedon was born in the compact city of Pella, Grease. He was born on July of 356 BC. He was acknowledged as Alexander the wonderful. To people, Alexander was one particular of the most significant perfectly acknowledged male in ancient record.

He was on a mission to greatness by his father Philp […]rnAlexander the Great was born in Macedonia in a Greek kingdom. As a kid, he was taught a selection of subjects this kind of as federal government, philosophy, and poetry from Aristotle.

Finding out these subjects as a young boy or girl served Alexander conquer nations afterwards in his daily life. Alexander led his military into quite a few victories and under no circumstances approved defeat […]rnWhenever people today, myself involved, listen to the identify “Alexander the Good”, an image of a historic gentleman might arrive into mind or they might have read that name prior to. Very well, with the curiosity of figuring out what helps make this male “excellent”, I took it on myself and snuck into a science museum to use the notorious time […]rnAlexander III, who would later on come to be recognised as Alexander the Good, was born in 356 BCE in Macedonia into the royal family of Philip II and Olympias. Due to the situation of his birth and his lineage, great matters were being expected from Alexander.

Philip’s court docket prophet, and Olympia’s goals previewed Alexander’s destiny for greatness as […]rnIf I had to describe the actual physical visual appeal , I would have to consider him as having curly and dark blonde hair, a projected brow, an prolonged chin, reddish pores and skin that glistened in the solar with eyes that gave an powerful gaze, and off program a remarkably buffed stature. (Matthew, 2014). This historic determine was […]rnAlexander the Terrific is recognized as just one of the finest army leaders of all time. He conquered various territories some of which were being the neighboring states of Greece, the Persian empire, and the Egyptians.

Categories
Uncategorized

What is the Mission of This Sparta Science Training Center?

Sparta Science Education Center is one of those facilities which can be manufactured to offer instruction all over the globe.

The centre provides many different branches of science which have energy, environment, and life sciences. It supplies courses for lecturers as well as stuff that are required for all students.

Sparta Science Education Center’s assignment will be always to promote education. It has now been present since 2020. It’s funded by means of a tax that is accumulated by all citizens of Panama. The amount of cash from your taxation is supplied for the company.

The curriculum is composed of four distinct classes. These are Science of Human Advancement, Agricultural Development, Agricultural Enterprise, and Life. Every one of these classes includes course substances that are specific.

The services offered via this institution are all made available to the public. These include educational stuff for college students, instruction centers, technology, plus a support team. The centres offer a space for writemypapers each one the pupils in study rooms, school, and recreation rooms.

The kids who attend the institution learn skills to become accountable. In addition they secure education to get a comprehension about this setting and to become workers. It also supplies.

The program for the findlaydigitalacademy.com courses at Sparta provides an comprehension regarding nature and the way it can be properly used. The center additionally highlights about the value of most the resources and the task that we do as individual beings. This really can be the reason they present different classes for adults, kids, and teenagers.

Exactly the various types of courses best site that are offered at Sparta include those that concentrate on ecology, natural resources, environmental management, and power administration. It also comes with a course which specializes in producing jobs . The use of renewable resources of energy is one of the chief centers of this center.

The middle is dedicated to supplying advice about asthma, asthma, asthma avoidance, and scleroderma disease. The center can be dedicated to offering services such as hygiene, food safety, and insect control. In addition, it supplies education on cybersecurity and occupational hazards.

A assortment of lessons can be found for grown ups and children, in order they can learn about activities along with other learning substances. Courses that are particularly for adults are also offered by the centre. The centers also provides education materials for several kinds of small business proprietors as well as business people.

If someone needs advice or additional info then they can opt for internet courses or classes that are telephonic. Some schools that offer instruction classes for teachers possess distance instruction courses as well. The centre hosts the 9th international symposium on agricultural improvement.

The centre does not rely on the personnel that belong to different fields educators. They also give choice to each. In addition, it prevents teaching staff from both the un, non-governmental associations , and also universities.

Sparta’s education center is devoted to helping strengthen the lifestyles of their citizens of Panama. Education is given by it for the young students therefore that they pursue their own livelihood and could carry on with their studies. The centre has set its own sights so it may bring about the progress of humankind.

Categories
Uncategorized

Retail Equipment – Quite a few Retail Software Applications

Retail tools are software programs that a dealer can use to improve and boost their store. These tools can help merchants measure the functionality of each personal employee. The best tools likewise allow a new retailer to evaluate the overall overall performance of the retail outlet. Most of these equipment also have features to enable the particular retailer to manage all of their personnel with one tool.

Retail equipment can be used to integrate and manage inventory, have a look at, keep information of product sales, track product returns, retail outlet inventories, manage customer service, and permit for ideal customer service. There are various other features that a retail store software can perform.

There are two types regarding retail software applications available for make use of by stores. These include non-technological retail resources that can be increased with technology.

The initial type of retail industry pricing tools  which is used by suppliers to enhance their store is surely an ecommerce answer. Most of these options use database management systems (DBMS) to store home elevators store staff. This information contains name, tackle, and other demographic information.

An internet commerce solution is some sort of technical store tool. Challenging the most expensive answer to implement within an existing retail industry business. A lot of solutions work with simple applications that integrate well to store resources, allowing the retailer to integrate that will system with the store, that may save these people money.

Technological options are useful to be able to businesses that will sell items online. The ecommerce solution can combine with the shopping cart application of your retail store. The shopping cart software then utilizes an online store solution to enable customers to be able to order items from your store.

A ecommerce fix is designed to reduces costs of a retailer’s store. An individual who visits the store will likely then need to enter in their purchase details from the shopping cart. A new non-technological answer can cost a new retailer less of your budget to implement. It does not work with any specialised technology. The software does not combine with the management of the store.

Nevertheless , there are some top features of the non-technological solution which are helpful to the majority of businesses. Generally, they can incorporate well together with stores, provided that they can take input coming from all of the retailers that the option integrates having. They also will typically let a merchant to incorporate with other online business solutions.

One of the main advantages of an internet commerce solution is it can easily allow the retailer to track every transaction that a customer makes. By developing with a business’s inventory management (IMS), the retailer can give the customer the best brand name on a item.

Generally, technical alternatives can cost some sort of retailer less of your budget to carry out. However , they might be less useful to most merchants . Non-technical solutions could allow a retailer to use a less complicated system, nonetheless it may not be helpful to a business.

Both forms of solutions are useful to many merchants. However , you will find advantages and disadvantages with each.

Categories
Featured Interesting Worldwide

পৃথিবী সম্পর্কে কিছু অজানা ও বিস্ময়কর তথ্য!

সৌরজগতে প্রাণধারণের উপযোগী একমাত্র গ্রহ আমাদের বাসস্থান পৃথিবী সম্পর্কে মজার কিছু তথ্য জানাবো আমাদের এই প্রতিবেদনে।

সৌরজগতের প্রায় সকল গ্রহ-উপগ্রহের নামকরন করা হয়েছে কোনো না কোনো রোমান বা গ্রীক দেব-দেবীর নামে। যেমন, শুক্র গ্রহের নামকরন করা হয়েছে গ্রীক সৌন্দর্য ও ভালোবাসার দেবী ভেনাসের নামে। রোমান যুদ্ধের দেবতা মার্সের নামে রাখা হয়েছে মঙ্গল গ্রহের নাম। শুধুমাত্র আমাদের নিজ গ্রহ পৃথিবীর নামকরন কোনো দেব-দেবীর নামে করা হয়নি।

পৃথিবীর বয়স প্রায় ৪৫০ কোটি বছর হলেও আমরা একে ‘আর্থ’ বা পৃথিবী নামে ডাকা শুরু করেছি মাত্র ১০০০ বছর আগে থেকে। প্রচলিত প্রায় সকল ভাষাতেই ‘পৃথিবী’ শব্দটি মাটি বা ভূমির সমার্থক শব্দ।

সূর্য থেকে গ্রহ গুলোর দুরত্ব বিচারে পৃথিবী সৌরজগতের তৃতীয় গ্রহ। পৃথিবীর আকার সৌরজগতের অন্যান্য গ্রহের তুলনায় বেশ ছোট। জুপিটার বা বৃহস্পতি গ্রহ পৃথিবী থেকে প্রায় এক হাজার গুণ বড়।

আমরা পৃথিবী থেকে যেমন চন্দ্রোদয় বা চন্দ্রাস্ত দেখি, ঠিক একইরকম ভাবে চাঁদের পৃষ্ঠ থেকে পৃথিবী-উদয় এবং পৃথিবী-অস্ত দেখা যায়। এ্যপোলো-৮ এর নভোচারীরা চাঁদকে প্রদক্ষিণ করার সময় সর্বপ্রথম পৃথিবী-উদয়ের এক অপার্থিব দৃশ্য ক্যামেরাবন্দী করেন।

পৃথিবী প্রতি সেকেন্ডে ২৯ কিলোমিটার বেগে সূর্যের চারদিকে প্রদক্ষিণ করে। এই গতিতে গাড়ি চালিয়ে ঢাকা থেকে জাপানের টোকিও শহরে যেতে সময় লাগবে মাত্র ২ মিনিট।

নভোচারীরা প্রথমবার মহাশূন্য থেকে পৃথিবীর দিকে তাকিয়ে এর নাম দেয় ‘ব্লু প্লানেট’, বা ‘নীল গ্রহ’। আমাদের পৃথিবীর ৭০ ভাগ অংশ পানি দ্বারা পরিবেষ্টিত। আর তাই মহাশূন্য থেকে পৃথিবীকে নীল দেখায়।

প্রায় ৩০ কোটি বছর আছে পৃথিবীর সকল স্থলভাগ একসাথে এক বিরাট মহাদেশ আকারে ছিলো। আর ছিলো একটিমাত্র অতিকায় মহাসাগর। তখনকার সেই একক মহাদেশকে বলা হয় ‘প্যানজিয়া’। আর সেই বিশাল মহাসাগরকে বলা হয় ‘প্যানথ্যালাসা’। সময়ের বিবর্তনে পৃথিবীর স্থলভাগ পৃথক হয়ে তৈরী করেছে সাতটি মহাদেশ ও পাঁচটি মহাসাগর।

প্রায় ২৩ কোটি বছর আছে আমাদের পৃথিবীতে বাস করতো প্রায় ৭০০ টি ভিন্ন প্রজাতির ডায়নোসর। আপনি যদি বর্তমান পৃথিবী বা নিজের জীবনের উপর হতাশ হয়ে, কিংবা ডিপ্রেশনে পরে টাইম ট্রাভেল করে ডায়নোসরদের সময়ে ফিরে যেতে চান তবে অবশ্যই স্পেসস্যুট পরে যেতে ভুলবেন না। কারন তখনকার পৃথিবীর আবহাওয়া ও জলবায়ু মোটেও এখনকার মতো ছিলো না। সেসময় বাতাসে যে পরিমান অক্সিজেন ছিলো, তাকে আসলে নাই বললেও চলে।

আমাদের সৌরজগতের অন্যান্য গ্রহের একাধিক উপগ্রহ থাকলেও, শুধু পৃথিবীরই একটি মাত্র উপগ্রহ আছে। কিন্তু আসলেই কি পৃথিবীর উপগ্রহ একটি? পৃথিবীর সহ-কক্ষপথে দু’টি এ্যস্ট্রয়েড বা গ্রহাণু পৃথিবীকে কেন্দ্র করে ঘুরছে। তারা কখনো পৃথিবীর খুব কাছে আসে, আবার কখনো পৃথিবী থেকে অনেক দূরে সরে যায়। এরা আকারে অনেক ছোট হওয়ার কারনে আমরা এদেরকে খালি চোখে দেখতে পাই না। এই দু’টি গ্রহাণু আমাদের পৃথিবীর উপগ্রহ না হলেও এদেরকে চাঁদের ছোটভাই বলাই যায়।

Categories
Featured Religion Worldwide

মসজিদ-আল-হারাম : মুসলিম বিশ্বের সবচেয়ে পবিত্র স্থান !

পবিত্র ‘কাবা শরীফ’ -এর চারদিকে যে মসজিদটি রয়েছে সেটি মসজিদ-আল-হারাম নামে পরিচিত। প্রতিবছর হজ্বের মৌসুমে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় মানব সমাবেশ ঘটে সৌদি আরবের মক্কায় অবস্থিত এই মসজিদটিতে। ইসলাম ধর্মের সর্বাধিক পবিত্র স্থান মসজিদ-আল-হারাম সম্পর্কে জানাবো আমাদের আজকের প্রতিবেদনে।

ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী পৃথিবীর প্রথম ইবাদতের স্থান পবিত্র কাবা। এখনো প্রতিদিন প্রতিনিয়ত বিশ্বব্যাপী প্রায় ১৬০ কোটি মুসলিম কাবার দিকে মুখ করে নামাজ আদায় করে। হজ্ব ও ওমরা পালনের জন্যও কাবাকে প্রদক্ষিণ করতে হয়। অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে কাবাকে প্রদক্ষিণ করা কখনই থেমে থাকে না। এই মুহূর্তেও কেউ না কেউ কাবাকে প্রদক্ষিণ করছে। এমনকি অতীতে বন্যার সময়ও মানুষ সাঁতার কেটে কাবাকে প্রদক্ষিণ করেছে।

ধারণা করা হয় খ্রিস্টপূর্ব প্রায় ২১৩০ সালের দিকে কাবা নির্মাণ করা হয়। পবিত্র কুরআনে বর্ণিত আছে, মুসলিম জাতির পিতা ইব্রাহিম (আ) ও তার পুত্র ইসমাঈল (আ) একত্রে কাবা নির্মাণ করেন। পূর্বে কাবা -কে কেন্দ্র করে একটি খোলা স্থানই ছিল মসজিদ। বিভিন্ন সময়ে একটু একটু করে মসজিদ-আল-হারামের নির্মাণ কাজ হয়। ৬৯২ সালে প্রথম ছাদ সহ দেয়াল দিয়ে মসজিদটি ঘিরে দেয়া হয়। ১৫৭০ সালে উসমানীয় সুলতান দ্বিতীয় সেলিমের আমলে সমতল ছাদের বদলে ক্যালিগ্রাফি সম্বলিত গম্বুজ ও নতুন স্তম্ভ স্থাপন করা হয়। ১৯৫৫ থেকে ১৯৭৩ সালের মধ্যে সাফা ও মারওয়া -কে মসজিদের দালানের মধ্যে নিয়ে আসা হয়। বর্তমানে মসজিদ-আল-হারামের মোট আয়তন ৩ লক্ষ ৫৬ হাজার ৮০০ বর্গমিটার বা ৮৮.২ একর। এ মসজিদের ৮১ টি দরজার প্রত্যেকটি সব সময় খোলা থাকে।

বাদশাহ আব্দুল্লাহ বিন আব্দুল আজিজ মসজিদের ধারন ক্ষমতা বিশ লক্ষে উন্নীত করার পরিকল্পনা গ্রহন করেন। সেজন্য ২০০৭ সালে মসজিদ-আল-হারাম এর সম্প্রসারণ কাজ শুরু হয়, যা ২০২১ সাল নাগাদ শেষ হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ২০১৫ সালে বাদশাহ মারা যাওয়ার পর তার উত্তরসূরি সালমান বিন আবদুল আজিজ এই সম্প্রসারণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। ২০১৫ সালের ১১ সেপ্টেম্বর এই সম্প্রসারণ কাজে ব্যবহৃত একটি ক্রেন ভেঙে পরায় ১১১ জন মারা যান।

১৯৭৯ সালের নভেম্বর মাসে কিছু চরমপন্থি মসজিদ-আল-হারাম দখল করে নেয়। তাদের এই আক্রমন ছিলো মূলত সৌদি আরবের রাজ পরিবারের বিরুদ্ধে একটি প্রতিবাদ। বিদ্রোহীরা ঘোষণা করে, ‘ইমাম মাহাদি’ তাদের প্রধান নেতা মোহাম্মদ আবদুল্লাহ্ আল কাহতানী’র বেশে চলে এসেছেন। তারা পৃথিবী জুড়ে সকল মুসলিমদের আহবান জানায় এই নেতার নির্দেশ মেনে চলার জন্য। এর পরবর্তী দুই সপ্তাহ যাবৎ তিনজন ফ্রেঞ্চ কমান্ডোর তত্ত্বাবধানে সৌদি আরব সেনাবাহিনী মসজিদ-আল-হারাম পুনর্দখলের জন্য যুদ্ধ চালিয়ে যায়। ঘটনার সময় চরমপন্থিরা পবিত্র হজ্ব পালনরত কয়েক হাজার ধর্মপ্রাণ মুসলমানকে আটক করে রাখে। এই ঘটনায় সমগ্র মুসলিম বিশ্ব স্তিমিত হয়ে যায়। মসজিদটির নিয়ন্ত্রণ পুনরুদ্ধারের যুদ্ধে শতশত জঙ্গি, নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য ও নিরীহ মুসলিম নিহত হয়। টানা দুই সপ্তাহ যুদ্ধ শেষে অবশেষে মসজিদ-আল-হারাম জঙ্গিমুক্ত হয়।

বৃটেনের বিখ্যাত আবাসন কোম্পানি ‘হোমস এ্যন্ড প্রোপার্টি’ -এর সাম্প্রতিক তথ্য মতে বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে মূল্যবান ও দামী সম্পদ গুলোর মধ্যে শীর্ষে রয়েছে মসজিদ-আল-হারাম। মুসলিমদের কাছে অমূল্য সম্পদ এ মসজিদটির নির্মাণ ব্যয় প্রায় ১০০ বিলিয়ন ডলার।

Categories
Featured Religion Worldwide

জমজম কূপ : মহান আল্লাহ্’র কুদরতের এক বাস্তবিক নিদর্শন !

হাজার হাজার বছর আগে শুরু হওয়া পবিত্র জমজম কূপের পানি বিপুলসংখ্যক মানুষ প্রতিদিন ব্যবহার করছে। মুসলমানদের কাছে জমজমের পানি অত্যন্ত বরকতময় ও পবিত্র। বৈজ্ঞানিকভাবেও জমজমের পানি পৃথিবীর সবচেয়ে বিশুদ্ধ পানি হিসেবে স্বীকৃত। মক্কার মসজিদুল হারাম ও মদিনার মসজিদে নববী থেকে প্রতিদিন প্রায় ২০ লক্ষ গ্লাস জমজমের পানি পান করা হয়।

আমাদের এই প্রতিবেদনে জানাবো পৃথিবীর সবচেয়ে সেরা পানির উৎস জমজম কূপ সম্পর্কে কিছু বিস্ময়কর তথ্য।

পবিত্র কাবা ঘর থেকে মাত্র ২১ মিটার দূরত্বে অবস্থিত আল্লাহ্’র কুদরতের বাস্তব নিদর্শন জমজম কূপ। কাবা ঘরের সামনে ‘হাজরে আসওয়াদ’ ও ‘মাকামে ইব্রাহীম’ -এর মাঝ বরাবর রয়েছে জমজম কূপ। বর্তমানে জমজম কূপটি মসজিদুল-হারামের অভ্যন্তরে অবস্থিত। হাদিসে এই পানির অশেষ কল্যাণ ও বরকতের কথা উল্লেখ রয়েছে। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের এক হাদিস মতে, “ভূপৃষ্ঠের সবচেয়ে উৎকৃষ্ট ও কল্যাণকর পানি জমজম কূপের পানি। এই পানি ক্ষুধার্তের জন্য খাদ্য ও রোগের জন্য পথ্য।” (ইবনে মাজাহ্)

জমজম কূপের পানির এই বিশেষত্ব বর্তমানে বিজ্ঞান দ্বারাও সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত। জমজমের পানি পৃথিবীর সবচেয়ে সেরা পানি। শুধু তাই নয়, এর সমমান সম্পন্ন পানি পৃথিবীতে আর দ্বিতীয় কোথাও খুঁজে পাওয়া যায়নি। সাধারণত যেকোনো কূপের পানি দীর্ঘদিন আবদ্ধ থাকার ফলে তার রং ও স্বাদ নষ্ট হয়ে যায়। কিন্তু হাজার হাজার বছর পার হয়ে যাওয়ার পরেও জমজমের পানি রয়েছে সম্পূর্ণ অবিকৃত। এর রং, স্বাদ ও বিশুদ্ধতায় সামান্যতম কোনো পরিবর্তন আসেনি। এই পানিতে কোন জীবানু, শৈবাল, ছত্রাক বা পানি দূষণকারী কোন ধরনের বস্তু টিকতে পারেনা। কোন নদী বা জলাশয়ের সঙ্গে এই কূপের কোন সংযোগ নেই। অথচ প্রতিমুহূর্তে লাখ লাখ মানুষ এই পানি ব্যবহার করছে ;আবার অনেকেই সাথে করে নিয়েও যাচ্ছে। তবুও জমজম কূপ কখনো শুকিয়ে যাবে না এবং এর পানি কখনো নষ্টও হবে না।

আজ থেকে প্রায় চার হাজার বছর আগে ইব্রাহীম (আ) তার প্রিয়তমা স্ত্রী হাজেরা ও আদরের পুত্র ইসমাইলকে মক্কার বিরাণ পাহাড়ি এলাকায় নির্বাসনে রেখে আসেন। এই নির্বাসন ছিল আল্লাহ্’র আদেশ মোতাবেক সবচেয়ে প্রিয় কোন কিছুর কোরবানি। এক মশক পানি ও এক থলে খেঁজুর সহ তাদেরকে বিরাণ মরুভূমিতে রেখে তিনি আল্লাহ্’র উপর ভরসা করেন। ফলে মক্কার বালুময় প্রান্তরে একাকী বসবাস করতে থাকেন মা হাজেরা ও তার শিশু ইসমাইল। তাদের স্বল্প রসদ অতি দ্রুতই ফুরিয়ে যায়। একদিন নিদারুণ পিপাসায় শিশু পুত্র ইসমাঈলকে খোলা প্রান্তরে রেখে মা হাজেরা সাফা-মারওয়া পাহাড়ে ছোটাছুটি করতে থাকেন। সাতবার তিনি এদিক থেকে ওদিক ছুটে বেড়ান। এক পর্যায়ে আল্লাহ্’র হুকুমে হজরত জিবরাইল (আ) মরুভূমির ভেতর থেকে পানির ঝরণা প্রবাহিত করে দেন। মা হাজেরা পুত্র ইসমাঈল (আ) -এর কাছে এসে দেখলেন এক অভূতপূর্ব ঘটনা। শিশু পুত্র ইসমাঈলের পায়ের আঘাতে শুকনো জমিতে তৈরি হয়েছে বিশুদ্ধ পানির স্রোত। তখন মা হাজেরা পানির চারদিকে বালির বাঁধ দিয়ে বললেন, ‘জামজাম’ ;অর্থাৎ থেমে যাও। সেই থেকে এখনো পর্যন্ত জমজম কূপ বহাল রয়েছে, এবং কেয়ামত পর্যন্ত থাকবে বলে মুসলমানদের দৃঢ় বিশ্বাস।

জমজম কূপের গভীরতা মাত্র ১০১ ফুট। কূপের পানির স্তর মাটি থেকে প্রায় সাড়ে দশ ফুট নিচে অবস্থিত। দু’টি বিশাল আকারের পানির পাম্পের সাহায্যে প্রতি সেকেন্ডে ১১০০ লিটার থেকে ১৮৫০ লিটার পর্যন্ত পানি উত্তোলন করা হয়। পানি উত্তোলন করার পর এর স্তর ৪৪ ফুট নিচে নেমে যায়। কিন্তু পানি উঠানো বন্ধ করার মাত্র ১১ মিনিট পরেই আবারো পানির স্তর স্বাভাবিক পর্যায়ে চলে আসে। জমজমের পানির চাহিদা জ্যামিতিক হারে বাড়তে থাকায়, পানি সরবরাহে সৌদি কর্তৃপক্ষ রীতিমতো হিমশিম খায়। তাই ২০১০ সালে মক্কার কাদাই এলাকায় জমজমের পানি সরবরাহের জন্য বিশাল এক প্রকল্প তৈরি করা হয়। সৌদি আরব সহ বিশ্বের অন্যান্য প্রান্তে জমজমের পানি পৌঁছে দেয়ার জন্য এখানে স্বয়ংক্রিয়ভাবে জমজমের পানি বোতলজাত করা হয়। এখান থেকে প্রতিদিন সরবরাহ করা হয় এক লক্ষ পঞ্চাশ হাজার লিটার জমজমের পানি। কিন্তু হজ্বের মৌসুমে এই পরিমাণ গিয়ে দাঁড়ায় দৈনিক চার লক্ষ লিটারে। এই প্রকল্প থেকে প্রতিদিন ১০ লিটারের প্রায় ১৫ লক্ষ বোতল জমজম পানি সংরক্ষণ করা হয়। এখান থেকে পরবর্তীতে বিশেষ ট্যাঙ্কারের মাধ্যমে মদিনার মসজিদে নববী সহ সৌদি আরবের অন্যান্য স্থানে পৌঁছে দেয়া হয় জমজমের পানি। কিছু কিছু স্থানে জমজমের পানি শীতলীকরণ করেও পরিবেশন করা হয়। মুসল্লি ও দর্শনার্থীরা যাতে নিজেদের প্রয়োজনে জমজমের পানি নিয়ে যেতে পারে, সেজন্যও রয়েছে পৃথক ব্যবস্থা। এছাড়া মক্কা ও মদিনার দুই মসজিদের মুসল্লিদের সুবিধার্থে বহু স্বেচ্ছাসেবক জমজমের পানি পিঠে বহন করে সরাসরি পরিবেশন করে থাকে। সেই সাথে বিভিন্ন ছোট ছোট বোতলজাতকৃত পানিও সরবরাহ করা হয়। সৌদি আরবসহ অন্যান্য মুসলিম দেশে বাণিজ্যিকভাবে জমজমের পানি মজুদ ও কেনাবেচা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। দুই পবিত্র মসজিদের অসংখ্য কর্মী সাধারণ মানুষের কাছে জমজমের পানি পৌঁছে দেওয়া ও এর রক্ষণাবেক্ষণের জন্য নিরলস কাজ করে যাচ্ছে।

জমজমের পানি নিয়ে এখনো পর্যন্ত বহু গবেষণা হয়েছে এবং হচ্ছে। সৌদি আরবে জিওলজিক্যাল সার্ভের অধীনে ‘জমজম স্টাডিজ এন্ড রিসার্চ সেন্টার’ নামে একটি গবেষণা কেন্দ্র রয়েছে। ল্যাবরেটরীতে পরীক্ষা করে দেখা গেছে, সাধারণ পানির তুলনায় জমজমের পানিতে ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম সল্ট এর পরিমান বেশি। যা ক্লান্তি দূর করতে অত্যন্ত সহায়ক ভূমিকা রাখে। ব্রিটিশ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের খাদ্য ও পুষ্টি বিভাগের গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, জমজমের পানি মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য শক্তিবর্ধক হিসেবে কাজ করে। সম্প্রতি ‘মাসারু এমাটো’ নামের জাপানি এক পানি গবেষক জমজমের পানি গবেষণা করে বলেছেন, জমজমের এক ফোঁটা পানির যে নিজস্ব খনিজ গুনাগুন আছে তা পৃথিবীর অন্য কোন পানিতে নেই। তার গবেষণায় আরো দেখা যায়, পৃথিবীর সাধারণ পানির তুলনায় জমজমের পানি এক হাজার গুণ বিশুদ্ধ। আর তাই এক হাজার ফোঁটা সাধারন পানির সাথে যদি এক ফোঁটা জমজমের পানি মেশানো হয়, তাহলে সেই সাধারণ পানিও জমজমের পানির মতো বিশুদ্ধ হয়ে যায়। অর্থাৎ সাধারণ যে কোন পানির সাথে জমজমের পানি মেশালে, সেই পানিও জমজমের পানির গুনাগুন অর্জন করে। বিশ্বের অন্য কোন পানিতে এ ধরনের আচরণ লক্ষ করা যায় না।

পবিত্র কাবা শরীফ এর চারদিকে যে মসজিদটি রয়েছে সেটি ‘মসজিদ-আল-হারাম’ নামে পরিচিত। সৌদি আরবের মক্কায় অবস্থিত এই মসজিদটিতে প্রতিবছর হজ্বের মৌসুমে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় মানব সমাবেশ ঘটে। ইসলাম ধর্মের সর্বাধিক পবিত্র স্থান মসজিদ আল হারাম সম্পর্কে জানাবো আমাদের পরবর্তী প্রতিবেদনে।

Categories
Featured Religion

পৃথিবীর কেন্দ্র পবিত্র ‘কাবা শরীফ’ !

সৌদি আরবের মক্কায় অবস্থিত ইসলামের সবচেয়ে পবিত্র স্থান ‘মসজিদুল হারাম’। এই মসজিদের কেন্দ্রে রয়েছে পবিত্র কাবা শরীফ। মুসলিমরা কাবার উপাসনা করে না, তারা উপাসনা করে এক ঈশ্বর আল্লাহ্’র। আর কাবা সেই বিশ্বাসেরই প্রতিনিধিত্ব করে। বিশ্বব্যাপী মুসলিমরা প্রতিদিন পাঁচবার এই ঘরের দিকে ফিরে প্রার্থনা করেন।

আমাদের এই প্রতিবেদনে জানাবো পবিত্র কাবা ঘর সম্পর্কে কিছু অজানা ও বিস্ময়কর তথ্য।

পৃথিবীর প্রথম ইবাদতের স্থান কাবা শরীফ। পবিত্র কুরআনের বর্ণনা অনুযায়ী মুসলিম জাতির পিতা ইব্রাহিম (আ) ও তার পুত্র ইসমাঈল (আ) একত্রে কাবা নির্মাণ করেন। ইসলাম ধর্ম শুরু হওয়ার বহু আগে থেকে কাবা -কে কেন্দ্র করে একটি নির্দিষ্ট এলাকা ছিল অত্যন্ত পবিত্র ও নিরাপদ স্থান। এখানে শিকার করা, গাছ কাকা, মারামারি করা, বা মানুষ হত্যার মত কাজ ছিল সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। তাই এই মসজিদকে বলা হয় মসজিদ-আল-হারাম। আরবি ভাষায় ‘হারাম’ শব্দটির একাধিক অর্থ রয়েছে। হারামের একটি অর্থ নিষিদ্ধ, আরেকটি অর্থ পবিত্র। তবে মসজিদ আল হারাম শব্দের নিষিদ্ধ বা পবিত্র ছাড়াও আরো কোন অন্তর্নিহিত অর্থ থাকতে পারে।

হযরত ইবরাহীম (আ) ও ইসমাইল (আ) কাবা ঘর নির্মাণ সম্পন্ন করার পর একটি পাথর বসানোর জায়গা থাকা ছিল। ইবরাহীম (আ) তার পুত্রকে পাঠান এখানে বসানোর মত একটি পাথর খুঁজে আনতে। তখন আল্লাহ্’র আদেশে ফেরেশতা জিব্রাইল (আ) জান্নাত থেকে একটি পাথর নিয়ে আসেন। বলা হয়ে থাকে, পাথরটি যখন পৃথিবীতে এসেছিল তখন এর রং ছিল সম্পূর্ণ সাদা। কিন্তু দিনে দিনে মানুষের পাপ শুঁষে নিয়ে পাথরটি কালো রং ধারণ করেছে। কাবা শরীফের দক্ষিণ-পূর্ব কোণে অবস্থিত এই পাথরের নাম ‘হাজরে আসওয়াদ’।

কাবা ঘর বহুবার পুনঃনির্মাণ ওর সংস্কার করা হয়েছে। তবে হযরত মুহাম্মদ (সা) নবুয়্যত প্রাপ্তির কয়েক বছর আগে কাবার সবচেয়ে বড় পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। প্রায় ১০০ বছর পরপর কাবা ঘরের বেশ কিছু সংস্কার কাজ করা হয়। সর্বশেষ ১৯৯৬ সালের কাবা ঘরের ভিত্তি আগের চেয়ে মজবুত করা হয়। সেই সাথে নতুন ছাদ স্থাপন করা হয় এবং বেশকিছু পাথর পরিবর্তন করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে আগামী কয়েক শত বছরে কাবাঘরে আর নতুন করে কোন সংস্কারের দরকার হবে না। বর্তমানে কাবা শরীফের উচ্চতা প্রায় ৫০ ফুট ;এবং দৈর্ঘ্য প্রায় ৪০ ফুট ও প্রস্থ ৩৫ ফুট। আতীতে কাবা ঘরে দুইটি দরজা ও একটি জানালা ছিল। একটি দরজা এর ভেতরে প্রবেশ করার জন্য, আরেকটি ভেতর থেকে বাইরে বের হওয়ার জন্য ব্যবহার করা হতো। কিন্তু বর্তমানে শুধু একটি দরজা রয়েছে এবং কোন জানালা নেই। কাবা ঘরের চারটি কোন কম্পাশের চারটি কাঁটা বরাবর রয়েছে। কাবা শুধু মুসলিমদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুই নয়, ভৌগোলিকভাবেও কাবাঘর পৃথিবীর কেন্দ্রে অবস্থিত।

পৃথিবীর ১৮০ কোটি মুসলিম প্রতিদিন পাঁচবার পবিত্র কাবার দিকে মুখ করে নামাজ আদায় করে। হজ্জ্ব ও ওমরার সময় মুসলিমরা কাবার চারপাশে ঘড়ির কাঁটার বিপরীত দিকে সাত বার প্রদক্ষিণ করে। যা ‘তাওয়াফ’ নামে পরিচিত। যে জায়গা জুড়ে তাওয়াফ করা হয় তাকে বলে ‘মাতাফ’। অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে, কাবাকে প্রদক্ষিণ করা কখনই থেমে থাকে না। এই মুহূর্তেও কেউ না কেউ তাওয়াফ করছে। এমনকি অতীতে বন্যার সময়ও মানুষ সাঁতার কেটে কাবাকে প্রদক্ষিণ করেছে।

বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের বিস্তারের কারণে সৌদি আরব ২০২০ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি বাইরের দেশ থেকে ওমরা পালন করতে আসার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। এরপর ৫ মার্চ পূর্ণাঙ্গ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করার জন্য মক্কা ও মদিনার দুই পবিত্র মসজিদ মুসল্লিদের জন্য বন্ধ করা হয়। তারপরের দিন মসজিদ ও মাতাফ আবারও খুলে দেয়া হলেও মার্চের মাঝামাঝি কাবা শরীফে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ, জুম্মার নামাজ এবং তাওয়াফ করার ব্যাপারেও আসে নিষেধাজ্ঞা। বাইরে থেকে মুসল্লিদের অংশগ্রহণ না থাকলেও কাবাঘর এবং মসজিদুল হারামের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও খাদেমরা মিলে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে জামাতের সাথে নামাজ আদায় করতে থাকেন। তবে করোনা ভাইরাসের কারনেও কাবাকে প্রদক্ষিণ করা একেবারে থেমে নেই। এসময় সৌভাগ্যবান কিছু মুসলিম তাওয়াফ করার সুযোগ পায়। মসজিদুল হারামের ভেতর ও ছাদের উপর দিয়ে সীমিত সংখ্যক লোক কাবাকে প্রদক্ষিণ করতে থাকেন। কাবা শরীফে মানুষের পদচারণা কমে যাওয়ার পর হঠাৎ করেই দেখা যায় আশ্চর্য এক ঘটনা। এক ঝাঁক পাখি কাবা ঘরের চারদিকে তাওয়াফ করতে থাকে। উপস্থিত কেউ একজন তা স্মার্টফোনে ভিডিও করে সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করলে, ভিডিওটি ইন্টারনেটে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে।

কাবা শরীফের গুরুত্বপূর্ণ অলংকার এর উপরের কালো পর্দা, যার নাম ‘কিসওয়া’। অনেকে একে কাবা শরীফের গিলাফ নামেও চেনে। মুসলিম বিশ্বের সেরা ক্যালিগ্রাফার এবং শিল্পীরা মূল্যবান এই আবরণ তৈরি করেন। রেশমের তৈরি কালো কাপড়ের উপর সোনা ও রুপার সুতা দিয়ে লেখা হয় পবিত্র কুরআনের আয়াত। এই গিলাফ তৈরি করতে ৬৭০ কেজি রেশম এবং ১৫ কেজি স্বর্ণ ব্যবহার করা হয়। এই সিল্ক আসে ইতালি থেকে, এবং সোনা ও রুপার প্রলেপ দেওয়া সুতা আসে জার্মানি থেকে। আধ্যাত্মিক বিচারে কিসওয়া অবশ্যই অমূল্য, কিন্তু এর বাজার মূল্য হিসাব করতে গেলে একটি কিসওয়া তৈরি করতে প্রায় ৫০ কোটি টাকার বেশি খরচ হয়। কাবা শরীফের গিলাফ কালো ছাড়া অন্য কোন রং আমরা কল্পনাই করতে পারি না। কিন্তু অতীতে সবুজ, লাল এবং সাদা রঙের গিলাফ ব্যবহার করা হতো। আব্বাসীয় খিলাফতের সময় থেকে কালো রংয়ের গিলাফের প্রচলন শুরু হয়। অতীতে একটি গিলাফের উপর আরেকটি নতুন গিলাফ বসানো হতো। একসাথে বহু গিলাফের ওজনের কারণে কাবা ঘরের উপর প্রচুর চাপ পরতো। তাই পরবর্তীতে শুধুমাত্র একটি গিলাফ রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। প্রতিবছর হজ্জ্বের মৌসুমে আরাফার দিনে গিলাফ পরিবর্তন করা হয়। এবং পুরনো গিলাফ ছোট ছোট অংশে কেটে বিভিন্ন জাদুঘর এবং বিশিষ্টজনদের উপহার হিসেবে পাঠানো হয়।

কাবা ঘরের ভেতরে কি আছে তা নিয়ে রয়েছে বহু জল্পনা-কল্পনা। অতীতে প্রতি সপ্তাহে দুইবার সকলের জন্য কাবাঘর খুলে দেয়া হতো। কিন্তু দিনে দিনে আগত মুসল্লির সংখ্যা অনেক বেড়ে যাওয়ায়, বর্তমানে বছরে মাত্র দুইবার কাবার দরজা খোলা হয় ;এবং কতিপয় সম্ভ্রান্ত ব্যক্তিরা এর ভেতরে প্রবেশ করেন। কাবা ঘরের দরজা খোলার দিন লক্ষ লক্ষ মুসলিম এর সামনে ভিড় করে এক ঝলক দেখার জন্য। কাবা ঘরের ভেতরে রয়েছে ছাদকে ধরে রাখার জন্য তিনটি স্তম্ভ। এর মাঝ বরাবর একটি টেবিল এবং সোনা ও রুপার তৈরি কিছু প্রদীপ ঝুলানো আছে। ভেতর থেকে কাবা ঘরের ছাদের উপরের দিকটা কুরআনের আয়াত সম্বলিত সবুজ কাপড় দিয়ে মোড়া। কাবা শরীফের ছাদে ওঠার জন্য এর ভেতরে আরও একটি দরজা আছে। কাবার ভেতরে প্রায় ৫০ জন লোক নামাজ আদায় করতে পারবে। এটিই পৃথিবীর একমাত্র ঘর, যেখানে আপনি যেদিকে খুশি সেদিকে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করতে পারবেন।

ইসলাম প্রচারিত হওয়ার আগে থেকে কুরাইশ গোত্রের একাধিক পরিবার কাবা শরীফের দেখভাল করত। কিন্তু সকল পরিবার তাদের নিয়ন্ত্রণ হারালেও শুধুমাত্র ‘বনি সাইবা’ পরিবার তাদের কর্তৃত্ব বজায় রাখে। মক্কা বিজয়ের পর মহানবী (সা) কাবা শরীফের চাবি বনি সাইবা গোত্রের উসমান বিন তালহা (রা) -এর কাছে অর্পণ করেন। এখনো কাবা ঘরের চাবি এই পরিবারের কাছেই আছে, এবং মহানবী (সা) -এর সালামের নির্দেশ অনুযায়ী কেয়ামত পর্যন্ত চাবিটি তাদের কাছেই থাকবে।

পবিত্র কাবা ঘর থেকে মাত্র ২১ মিটার দূরত্বে অবস্থিত আল্লাহর কুদরতের বাস্তব নিদর্শন ‘জমজম কূপ’। জমজমের এক ফোঁটা পানির যে খনিজ গুনাগুন আছে, তা পৃথিবীর অন্য কোন পানিতে নেই। ল্যাবরেটরীতে পরীক্ষা করে দেখা গেছে, পৃথিবীর সাধারণ পানির তুলনায় জমজমের পানি এক হাজার গুন বেশি বিশুদ্ধ। পৃথিবীর সবচেয়ে সেরা পানির উৎস জমজম কূপ সম্পর্কে জানাবো আমাদের পরবর্তী প্রতিবেদনে।

Categories
Featured Religion Worldwide

মসজিদে নববী : ইসলামের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পবিত্র স্থান

ইসলাম ধর্মের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পবিত্র স্থান ‘মসজিদে নববী’। ‘মসজিদ আল-হারাম’ -এর পরেই মসজিদে নববী’র অবস্থান। মসজিদে নববী শুধু উপাসনার জায়গা নয়। এটি একাধারে সম্মেলন কেন্দ্র, বিচারালয় এবং ধর্মীয় শিক্ষা কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। প্রতি বছর হজ্জ্ব এর আগে বা পরে সারা বিশ্বের লক্ষ লক্ষ মুসলিম এই মসজিদে ইবাদত করতে আসে।

আমাদের এই প্রতিবেদনে জানাবো ইসলামের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মসজিদ ‘মসজিদে নববী’ সম্পর্কে কিছু বিস্ময়কর তথ্য।

হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) মক্কা ছেড়ে মদীনায় আসার পর মসজিদে নববী নির্মাণ করেন। মহানবী (সাঃ) নিজে এই মসজিদ নির্মাণের জন্য শারীরিক শ্রম দিয়েছেন। সর্বপ্রথম মসজিদে নববী’র দৈর্ঘ্য ছিল ১১৭ ফুট, এবং প্রস্থ ছিল ১০০ ফুট। তখন মসজিদের খুঁটি নির্মাণ করা হয়েছিল খেঁজুর গাছের কাণ্ড নিয়ে। এর ছাদ হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছিল খেঁজুর গাছের পাতা ও কাঁদার আস্তরণ। এবং মেঝেতে বিছানো ছিল মরুভূমির বালি। খায়বারের যুদ্ধের পর মুসলিমদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলে, মসজিদের সম্প্রসারণ করা হয়। তখন মসজিদের সবদিকে ১৫৫ ফুট করে সীমানা বৃদ্ধি পায়। ইসলামের প্রথম খলিফা হযরত আবু বকর (রা) -এর শাসন আমল পর্যন্ত মসজিদের সেই আকার অপরিবর্তিত ছিল। এরপর দ্বিতীয় খলিফা হযরত ওমর (রা) মসজিদের সীমানা বৃদ্ধি করেন, এবং মসজিদের মেঝেতে পাথর বিছান। তৃতীয় খলিফা হযরত উসমান (রা) নতুন করে মসজিদটি নির্মান করেন। তিনি খেঁজুর গাছের কান্ডের বদলে লোহা ও পাথর দিয়ে মসজিদের খুঁটি স্থাপন করেন। এবং ছাদ নির্মাণ করতে সেগুন কাঠ ব্যবহার করেছেন। এরপর উমাইয়া, আব্বাসীয়, উসমানীয় এবং সর্বশেষ সৌদি রাজপরিবারের শাসনামলে বহু ধাপে মসজিদের সীমানা সম্প্রসারণ এবং মসজিদের কাঠামোর উন্নয়ন করা হয়েছে।

মসজিদে নববীর একটি প্রতীকী অংশ হলো ‘সবুজ গম্বুজ’। এই জায়গাটি ছিল হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) -এর বাসগৃহ। বর্তমানে মসজিদের দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত এই গম্বুজ এর নিচে রয়েছে মহানবী (সাঃ) -এর রওজা বা সমাধি। নবীজি (সাঃ) -এর সমাধির পাশে তাঁর ঘনিষ্ঠ দুই সহচর হযরত আবু বকর ও হযরত ওমর এর সমাধিও রয়েছে। এবং তাদের পাশে আরও একটি সমাধির জায়গা খালি রাখা হয়েছে। ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী হযরত ঈসা (আ) আবারো পৃথিবীতে ফিরে আসবেন, এবং তিনি পুনরায় মারা যাবার পর তাকে এখানে সমাহিত করা হবে।

রাসূল (সাঃ) -এর রওজা জিয়ারত করার জন্য যে দরজা দিয়ে প্রবেশ করতে হয় তার নাম ‘বাব উস সালাম’ এবং জিয়ারত শেষে ‘বাব উল বাকী’ নামে আরেকটি দরজা দিয়ে বের হতে হয়। মহানবী (সাঃ) -এর রওজা থেকে মসজিদে নববীর মিম্বর পর্যন্ত বিস্তৃত এই জায়গাটিকে বলা হয় ‘রিয়াদুল জান্নাহ্’, যার অর্থ জান্নাতের বাগান। এই জায়গার মধ্যে নামাজ আদায় করা জান্নাতের বাগানে নামাজ আদায় করার শামিল। রিয়াদুল জান্নাহ্ থেকে কোন দোয়া করা হলে, তা অবশ্যই আল্লাহ্’র দরবারে গৃহীত হয়। হজ্জ্বের সময় আগত প্রত্যেক মুসল্লী এখানে নামাজ আদায় করতে চায়, কিন্তু সব সময় এখানে জায়গা পাওয়া যায় না।

হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) -এর জীবদ্দশায় মদিনার যতটুকু অংশ জুড়ে মানববসতি ছিল, তার অনেকাংশই এখন মসজিদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে গেছে। এর প্রমাণ হিসেবে বলা যায়, অতীতে মদিনা জনবসতির একেবারে শেষ প্রান্তে ছিল ‘জান্নাতুল বাকী’ কবরস্থান। আর বর্তমানে ‘জান্নাতুল বাকী’ মসজিদে নববীর চত্বরের পাশেই অবস্থিত। জান্নাতুল বাকী কবরস্থানে মহানবী (সাঃ) -এর স্ত্রী, আত্মীয়-স্বজনসহ বেশ কয়েক হাজার সাহাবীর কবর রয়েছে। বর্তমান সময়ে মসজিদে নববী এর প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ের আয়তনের চেয়ে একশত গুণেরও বেশি বড়। মসজিদে নববীর ধারণক্ষমতা প্রায় ছয় লক্ষ। তবে হজ্বের মৌসুমে প্রায় দশ লক্ষেরও বেশী লোক এই মসজিদ প্রাঙ্গণে জমায়েত হতে পারে।

অতীতে এই মসজিদ ছিল ইসলামী জ্ঞান চর্চার প্রধান কেন্দ্র। মসজিদে সব সময় একদল সাহাবী বসবাস করত। তাদেরকে বলা হতো ‘আসহাবে সুফফা’। তারা ইসলামের জ্ঞান অর্জনের জন্য নিজেদের জীবন উৎসর্গ করেছিল। পরবর্তীতে তাদের কাছ থেকেই বহু সংখ্যক হাদিস সংগ্রহ করা হয়েছে।

মসজিদের প্রাঙ্গণে ছাতার মতো তাবু রয়েছে। যা প্রয়োজন অনুসারে ছাতার মতো খুলে ও বন্ধ করে রাখা যায়। একটি জার্মান স্থাপত্য প্রতিষ্ঠান এই ছাতাগুলো নির্মাণ করেছে।

১৯০৯ সালের সমগ্র আরব উপদ্বীপের মধ্যে মসজিদে নববীতেই সর্বপ্রথম বৈদ্যুতিক বাতি জ্বালানো হয়। বলা হয়ে থাকে তৎকালীন অটোমান সম্রাট তার প্রাসাদে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার আগে এই মসজিদে বিদ্যুৎ সংযোগ পৌঁছানোর ব্যবস্থা করেন।

Categories
Interesting Lifestyle Worldwide

সোমালিয় জলদস্যুতা : নৌকায় চড়ে জাহাজ ছিনতাই!

সোমালিয়ান জলদস্যুদের উত্থান হয়েছিল এক অসাধারণ প্রতিরোধ যুদ্ধের মধ্য দিয়ে। পরবর্তীতে জলদস্যুতা পরিণত হয় সোমালিয়ার অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তিতে। আফ্রিকার সমগ্র পূর্ব উপকূল থেকে শুরু করে, আরব সাগর ও ভারত মহাসাগরের বিস্তীর্ণ জলরাশি জুড়ে গড়ে উঠেছিল তাদের দুর্দমনীয় আধিপত্য। পণ্যবাহী জাহাজের আতঙ্ক সোমালিয়ার কুখ্যাত জলদস্যুরা বিশাল বিশাল জাহাজ ছিনতাই করেছে সামান্য স্পিডবোট ব্যবহার করে।

আমাদের এই প্রতিবেদনে জানাবো সোমালিয়ার জলদস্যুরা ছোট ছোট স্পিডবোট ব্যবহার করে সমুদ্রের মাঝখানে কিভাবে বিশাল আকারের জাহাজ ছিনতাই করে।

এশিয়ার দেশগুলো ইউরোপের সাথে বাণিজ্য করতে চাইলে, ভারত ও আরব সাগর দিয়ে সুয়েজ খাল অতিক্রম করেই কেবল ভূমধ্যসাগরে পৌঁছানো সম্ভব। আর এই পথে চলা জাহাজগুলোকে সোমালিয়ার উপকূল অতিক্রম করতেই হয়। আর তাই জলদস্যুদের এড়িয়ে বাণিজ্য জাহাজগুলি পরিচালনা করা একপ্রকার অসম্ভব হয়ে ওঠে। বিশেষ করে যারা ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য আরব সাগর ও লোহিত সাগর ব্যবহার করে, তাদের জন্য এই রুটটি হয়ে ওঠে পৃথিবীর সবচেয়ে বিপদসংকুল জলপথ।

১৯৯১ সালের পর থেকে এই এলাকায় জলদস্যুতার শুরু হলেও ২০০৫ সাল থেকে মূলত সোমালিয় জলদস্যুরা বৃহৎ পরিসরে সংঘবদ্ধ আক্রমণ শুরু করে। এসময় থেকেই তারা অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ও স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রের ব্যবহার শুরু করে। মোবাইল ফোন, স্যাটেলাইট ফোন, জিপিএস, সোলার সিস্টেম, আধুনিক স্পিডবোট, অ্যাসল্ট রাইফেল, শটগান, গ্রেনেড লঞ্চার সহ অত্যাধুনিক সরঞ্জাম নিয়ে তারা আক্রমণ চালায়। গভীর সমুদ্রে দস্যুবৃত্তির ক্ষেত্রে তারা একটি মাদারশীপ থেকে অভিযান পরিচালনা করে। আর বড় জাহাজ গুলোর কাছে পৌঁছাতে তারা দ্রুতগতির ছোট ছোট মোটর চালিত নৌকা ব্যবহার করে। আক্রমণকারী এসব স্পিডবোটে ভারি অস্ত্র ও স্যাটেলাইট ইকুইপমেন্টের পাশাপাশি সবচেয়ে বেশি থাকে নৌকার ইঞ্জিনের জ্বালানি। কারণ কখনো কখনো টানা ২-৩ দিন পর্যন্ত তাদের টার্গেটের পেছনে ধাওয়া করতে হয়।

আক্রমণের সময় হিসেবে জলদস্যুরা সাধারণত রাত বা ভোরের দিকটা বেছে নেয়। আক্রমণকারী স্পীডবোট অতিরিক্ত ছোট হওয়ায় বড় জাহাজগুলোর রাডারে সহজে ধরা পড়ে না। জলদস্যুরা সাধারণত জাহাজের পেছন দিক থেকে আক্রমণ করে। দস্যুদের নৌযানগুলো জাহাজের দিকে আসতে দেখলে নাবিকরা গরম পানি স্প্রে করে আক্রমণ ঠেকানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু তাদের ঠেকানো খুব সহজ নয়। এক মাথায় হুক লাগানো লম্বা মই বা দড়ি বেয়ে তারা দ্রুত জাহাজে উঠে যায়। অনেক সময় তারা লম্বা বাঁশ ব্যবহার করে জাহাজের পেছন দিকে লাগানো হুঁকের সাথে আটকে দেয়, আর তা বেয়ে জাহাজে উঠে যায়। জলদস্যুরা জাহাজে উঠে সকলকে জিম্মি করে ফেলে। এই কাজগুলো তারা এত দ্রুত করে, যে জাহাজের ক্রু-রা কিছু বুঝে ওঠা বা এলার্ম বাজানোর আগেই তারা সবকিছু নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়। যদিও অতিরিক্ত উচ্চতার কারনে বিশালাকার কার্গো বা ট্যাংকারবাহী নৌ-যান গুলোতে আরোহন করা কঠিন, তবে পুরোপুরি ভর্তি অবস্থায় এগুলো অনেকটা ধীর গতিতে চলে। এই কারনে জাহাজগুলো আক্রমন করা দস্যুদের জন্যে সহজ হয়ে যায়।

জলদস্যুরা মুক্তিপণ আদায় করে ইউএস ডলার বিলের মাধ্যমে। মুক্তিপণের অর্থ ডেলিভার করার জন্য তা বস্তায় ভরে হেলিকপ্টার থেকে ফেলে দেয়া হয়। যদিও মুক্তিপণ আদায়ের লক্ষ্যে জলদস্যুরা বন্দীদের জীবিত রাখে, তবুও তাদের কাছে বন্দী অবস্থায় এ পর্যন্ত ৬০ জনের বেশি নাবিক মারা গিয়েছে।